Home / এক্সক্লুসিভ / মাথায় পাখির বিষ্ঠা পড়লে মানুষ কী ধনী হয়?

মাথায় পাখির বিষ্ঠা পড়লে মানুষ কী ধনী হয়?

আদিযুগ থেকেই কুসংস্কার মানবসমাজের সঙ্গী। মজার বিষয় হলো, এসব কুসংস্কার একটা সময় নিয়ম বা রীতিতে পরিণত হয়। আর অনেক দেশ আছে যেখানে এখনো এই কুসংস্কার অন্ধের মতো বিশ্বাস করে মানুষ। জানতে চান এই ভ্রান্ত ধারণাগুলো কী কী? তাহলে বোল্ডস্কাই ওয়েবসাইটের লাইফস্টাইল বিভাগের এই তালিকা একবার দেখে নিন।

মাথায় পাখির বিষ্ঠা পড়লে মানুষ ধনী হয়

রাশিয়ার অনেক মানুষ এখনো মনে করে হাঁটা-চলার সময় যদি মাথায় পাখির বিষ্ঠা পড়ে তাহলে তারা অনেক টাকা পয়সার মালিক হবে। তাহলে যারা ধনী হয়েছে তাদের সবার মাথায় কি পাখি বিষ্ঠা ত্যাগ করেছিল?

বউয়ের মুখ ঢাকা

রোমান ঐতিহ্য অনুযায়ী সবাই বিশ্বাস করে যে, বিয়ের সময় বউ লম্বা ওড়না ব্যবহার করলে শয়তান দূরে থাকে। এ কারণে লম্বা ওড়না দিয়ে বিয়ের সময় বউয়ের মুখ ঢেকে রাখা হয়, যাতে শয়তান বা ভূত তাঁকে দেখতে না পারে! কিন্তু বিয়ের পর কিন্তু এই লম্বা ওড়না আর ব্যবহার হয় না। তখন কি তাদের ভূতে ধরে?

লেটুস পাতা বন্ধ্যাত্বের কারণ

ঊনবিংশ শতাব্দীর দিকে অনেক ব্রিটিশ নারী সন্তান ধারণের কালে সালাদে লেটুস পাতা ব্যবহার করত না। কারণ এই পাতা নাকি গর্ভধারণের জন্য ক্ষতিকর। তারা মনে করত এই পাতা বন্ধ্যাত্বের কারণ। পরে অবশ্য এই ভুল তাদের ভাঙে।

রাতে চুইঙ্গাম খাওয়া ঠিক না

তুরস্কের অনেকেই নাকি রাতে চুইঙ্গাম খায় না। কারণ তারা বিশ্বাস করে, রাতে চুইঙ্গাম খাওয়া মৃত পশুর মাংস খাওয়ার মতো। বুঝতেই পারছেন কী ভীষণ কুসংস্কার!

মধ্যরাতে আঙ্গুর খাওয়া ভাগ্যের জন্য ভালো

স্পেনে নাকি বছরের প্রথম দিন কেউ কাউকে শুভেচ্ছা জানায় না, বা ভালো কিছুর জন্য প্রার্থনাও করে না। তারা শুধু মধ্যরাতে ১২টি আঙ্গুর খায়। যাতে আগামী ১২ মাস তাদের ভাগ্য ভালো হয়! এটাও কী বিশ্বাস করার মতো কথা?